যে ধরনের শপ বা দোকান থেকে মোবাইল কিনবেন না

মোবাইল আমাদের জীবনের একটি অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিদিন অসংখ্য কাজ করে থাকি মোবাইল দিয়ে। হিসাব করা থেকে শুরু করে কারো সাথে কথা বলা, মুভি দেখা, গান শোনা, বা গেম খেলা, সব কাজই আমরা এখন মোবাইলে করতে পছন্দ করি।

যেসব দোকান থেকে মোবাইল কিনবেন না

আমাদের পছন্দের তালিকায় মোবাইল বাড়ার সাথে সাথে বাড়ছে মোবাইল কেনা-বেচার চাহিদা। প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ মোবাইল বিক্রি হচ্ছে। সেই সাথে বাজারে আসছে বিভিন্ন কোম্পানির নতুন নতুন ফোন।

যেসব শপ বা দোকান থেকে মোবাইল কিনবেন না

মোবাইল কেনার সময়ও কিন্তু বিভিন্নভাবে প্রতারিত হতে পারেন। তাই মোবাইল কেনার সময় সাবধানতা ও সতর্কতা অবলম্বন করা উচিৎ। এবং দোকান বা অনলাইন শপ থেকে মোবাইল কেনায় সময় সেই  দোকান বা অনলাইন শপটি সম্পর্কে ভালোভাবে আইডিয়া নিয়ে তারপর কেনা উচিৎ।

১. আন অথোরাইজড শপঃ

আমাদের বাংলাদেশে বর্তমানে প্রচুর পরিমাণ এর ধরনের অনলাইন শপ ও দোকান বেড়ে গিয়েছে। তারা অনলাইন বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ সাইট, যেমনঃ ফেসবুক, টুইটার, ইন্সটাগ্রামে, চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে মানুষকে বোকা বানিয়ে বিভিন্ন কপি সেট ও নকল মোবাইল বিক্রি করে।

সাধারণ মানুষের সরলতা ও অজ্ঞতার সুবিধা নিয়ে তারা বিভিন্ন নকল সেট অরিজিনাল সেট বলে চালিয়ে দেয় এবং অরিজিনাল মোবাইল এর মত দাম রাখে। ফলে তারা মোটা অংকের একটা লাভ করে থাকে।

এসব কপি মোবাইল কিছুদিন পর নষ্ট হয়ে যায় বা একদম স্লো কাজ করতে থাকে। তখন যে শপ বা দোকান থেকে ফোনটি কিনেছিলেন তারা আপনাকে কোন সাহায্য করবে না। কারন তারা নিজেরাই জানে এগুলো নকল ফোন।

তাই এসব আন অথোরাইজড শপে চটকদার বিজ্ঞাপনের লোভে পরা থেকে বিরত থাকতে হবে এবং এসব দোকান থেকে মোবাইল কেনা বিরত থাকতে হবে।

২. দোকানদারের ব্যবহার

হ্যাঁ, বন্ধুরা মোবাইল কেনার সময় দোকানদারের ব্যবহারের উপরও আপনাকে লক্ষ রাখতে হবে।

অনেক সময় দেখবেন যে অনেক দোকানে কিছু কিনতে গেলে তারা খারাপ আচরণ করে এবং তারা এমন একটা ভাব দেখাবে যেন আপনি জিনিসটি কিনলেন বা না কিনলেন তাতে তাদের কিছু আসে যায় না।

আসলে এটি তাদের একটি মার্কেটিং পলিসি। যখন আপনি দেখবেন মোবাইল কিনতে গিয়ে কোন দোকানদার আপনার সাথে এরকম ব্যবহার করছে তখন ঐ দোকান থেকে মোবাইল কিনবেন না।

কারন এই দোকান থেকে যদি আপনি মোবাইল কিনেন তাহলে আপনি তাদের ফাঁদে পা দিয়ে দিলেন। মোবাইল কেনার পরবর্তীতে আপনি যদি মোবাইল নিয়ে কোন সমস্যায় পরেন হাজার বললেও তারা আপনাকে কোন সাহায্য করবে না।

বরং আপনি যখন মোবাইল সার্ভিসিং করতে তাদের কাছে নিয়ে যাবেন তখন তারা আরো বেশি খারাপ ব্যবহার করবে এবং আপনাকে বিভিন্ন ভাবে অপমান করবে। তাই এসব দোকান থেকে মোবাইল বা যেকোন কিছু না কেনাই ভালো।

৩. অতি ভক্তি

কথায় আছে অতি ভক্তি চোরের লক্ষন। যেসব দোকানে মোবাইল কিনতে গেলে দেখবেন অতিরিক্ত ভক্তি বা অতিরিক্ত আপ্যায়ন করার চেষ্টা করছে এসব দোকান থেকে মোবাইল কিনবেন না।

কারন তারা অতিরিক্ত ভক্তির ফাঁদে কখন আপনাকে একটি রিফার্বিশড, নকল, আনঅফিসিয়াল, ফোন ধরিয়ে দিবে বুঝতেও পারবেন না।

তাদের কাছে অনেক নকল কোম্পানি ও চোরাই মোবাইল আসে। তারা এসব মোবাইল অফিসিয়াল বলে অনেকের কাছে বিক্রি করে দেয়। তারা আপনার সাথেও খুব ভালো ব্যবহার করে বলেবে, ভাই মোবাইলটি খুব ভালো, মার্কেটে নতুন এসেছে, ইত্যাদি।

মানে তারা নানা ভাবে আপনাকে বুঝাতে চেষ্টা করব মোবাইল আপনার নেওয়া উচিৎ। বন্ধুরা এসব দোকান থেকে দুরে থাকাই ভালো।

কিভাবে প্রতারিত হওয়া থেকে বাঁচবেন

  1. সবসময় অফিসিয়াল শপ বা অফিসিয়াল দোকান থেকে মোবাইল কিনবেন।
  2. অনলাইনে মোবাইল কেনার সময় অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে কিনবেন।
  3. মোবাইল কিনতে যাওয়ার সময়, মোবাইল সম্পর্কে ভালো জানে এরকম কাউকে সাথে নিয়ে যান।
  4. যথাসম্ভব অনলাইনে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন দেখে মোবাইল কেনা থেকে বিরত থাকুন।
  5. মোবাইল কেনার আগে ইউটিউবে রিভিও দেখে নিন এবং বিভিন্ন জনপ্রিয় চ্যানেল থেকে রিভিও দেখে নিন। বা তাদের রিকোমেন্ড করা শপ এবং অনলাইন লিংক থেকে মোবাইল কিনতে পারেন। যেমনঃ ATC – Android ToTo Company.
  6. মোবাইল কেনার সময়, মোবাইল এর বক্স সিল করা আছে কিনা তা দেখে নেওয়া।
  7. IMEI নাম্বার চেক করা এবং BTRC ডাটাবেজে IMEI টি আছে কিনা তা দেখে নেওয়া।
  8. তাছাড়া মোবাইল কেনার সময় গুগল বা অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে এর দাম, প্রসেসর, ক্যামেরা, ডিজাইন, ইত্যাদি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো চেক করে নেওয়া।

উপরের এই টিপসগুলো ফলো করলে আশা করি প্রতরণার হাত থেকে বাঁচতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ

Leave a Reply

Back to top button