ট্রেনের ইঞ্জিন কেন বন্ধ করা হয় না জানলে অবাক হবেন

সেই প্রাচীন কাল থেকে ট্রেন হলো যাতায়াতের অন্যতম সহজ, দ্রুত এবং সাশ্রয়ী একটি মাধ্যম। স্টিম বা বাষ্প চালিত ইঞ্জিন আবিষ্কার হবার পর হয়েছিল শিল্প বিপ্লব যা পুরো বিশ্বকে পাল্টে দিয়েছিল। এরপর ধীরে ধীরে আবিষ্কার হলো ডিজেল চালিত ইঞ্জিন যা আজও পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ব্যবহৃত হচ্ছে। ট্রেনের ইঞ্জিন কেন বন্ধ করা হয় না

পৃথিবীর বেশির ভাগ দেশে ডিজেল চালিত পুরোনো প্রযুক্তির ইঞ্জিন এর ব্যবহার বন্ধ হয়ে গেলেও, বাংলাদেশ ও ভারতে এখনো বেশিরভাগ ট্রেন চলে ডিজেল চালিত ইঞ্জিনে। এসব ইঞ্জিন অনেক পুরোনো এবং এগুলে মাঝেমধ্যেই অনেক যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দেয়। যার ফলে ট্রেন চলাচল ও শিডিউলে বিঘ্ন ঘটে।

মাঝে মাঝে দেখা যায় রেল লাইনের উপরে শুধু ইঞ্জিনটি থাকলেও এটি বন্ধ করা হয় না, সারাক্ষণ চালু করে রাখা হয়। আবার স্টেশনে ট্রেন এসে থামলেও বা ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকলেও এর ইঞ্জিম সচল রাখা হয়। কখনো কি মনে প্রশ্ন এসেছে যে, ট্রেনের ইঞ্জিন কেন বন্ধ করা হয় না?

প্রশ্ন জাগাটাই স্বাভাবিক। ট্রেনের ইঞ্জিন বন্ধ না করার পেছনে অনেক কারন আছে। চলুন আজকে জেনে নেয়া যাক, ট্রেনের ইঞ্জিন কেন বন্ধ করা হয় না?

ট্রেনের ইঞ্জিন কেন বন্ধ করা হয় না

যেসব ট্রেনের ইঞ্জিম বন্ধ করা হয় না, সেগুলো মূলত ডিজেল চালিত ট্রেন। এসব ট্রেনের ইঞ্জিনগুলো বেশ পুরোনো। বাংলাদেশের যেসব ট্রেন ও ইঞ্জিন আছে সেগুলোর বেশিরভাগই ডিজেল চালিত।

আর ডিজেল চালিত এসব ইঞ্জিন চালু করতে ৫-১০ মিনিট সময় লেগে যায়। এসময়ের মধ্যে যদি ট্রেন ছেড়ে যাওয়ার জন্য হলুদ বা সবুজ বাতি সিগনাল দেওয়া হয়, তাহলে সাথে সাথে ট্রেন ছেড়ে যেতে পারে না।

ফলে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়। ট্রেন যেন সিগনাল পাবার সাথে সাথে ছেড়ে যেতে পারে তাই ইঞ্জিন সবসময় চালু রাখা হয়। তাছাড়া ট্রেনের ব্রেক কাজ করে এয়ার কম্প্রেসার বা বায়ু চাপকে ব্যবহার করে। এয়ার কম্প্রেসার ও ব্রেকগুলো ঠিকভাবে কাজ করার জন্যও ইঞ্জিন চালু থাকা আবশ্যক।

ইঞ্জিন সবসময় চালু রাখার আরেকটি কারন হলো, জ্বালানী সাশ্রয় করা। ডিজেল চালিত ইঞ্জিন চালু করতে হলে তাপমাত্রা একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ হতে হয়, যা বার বার করতে গেলে অনেক জ্বালানী অপচয় হবে। তাই জ্বালানী বাঁচানো, সময় সাশ্রয়, ব্রেক ঠিকভাবে কাজ করা, দুর্ঘটনা এড়ানো সহ বিভিন্ন কারনে ট্রেনের ইঞ্জিন বন্ধ করা হয় না।

আরো পড়ুনঃ

 

Leave a Reply

Back to top button